৩ থেকে ৪ লাখ প্রতিষ্ঠান ভ্যাট দেয় না: অর্থমন্ত্রী

মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট পরিশোধের সক্ষমতা থাকলেও প্রায় ৩ থেকে ৪ লাখ প্রতিষ্ঠান ভ্যাট দেয় না বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।
রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় মূসক দিবস ২০১৫ উপলক্ষে ‘সর্বোচ্চ মূসক প্রদানকারী করদাতাদের সম্মাননা প্রদান’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মো. ফরিদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর অর্থবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. আবদুর রাজ্জাক, এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ ভ্যাট দাতা ১১৯ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ভ্যাট আদায়ের বর্তমান হার সন্তোষজনক নয়। দেশে মূসক দেয় মাত্র ৬০ হাজার প্রতিষ্ঠান। যারা ভ্যাট দেয়ার যোগ্য এ সংখ্যা তাদের ধারে-কাছেও নেই। কমপক্ষে ৩ থেকে ৪ লাখ প্রতিষ্ঠানে ভ্যাট পরিশোধের সক্ষমতা রয়েছে। কিন্তু তারা ভ্যাট দেয় না। এদের ভ্যাটের আওতায় আনতে হবে।
মুহিত বলেন, ভ্যাট কখন-ই জনপ্রিয় নয়। আসলে কোনো করই জনপ্রিয় নয়। এর মধ্যে মূসক বেশি অজনপ্রিয়। তবে তার ব্যক্তিগত অভিমত মূসক সব থেকে ভালো কর। যদি হিসাব-নিকাশ ঠিকভাবে রাখা যায়, তবে এ থেকে ভালো কর আদায় সম্ভব। পণ্যে যতটুকু মূল্য সংযোজন করা হবে তার ওপরই কর দিতে হবে বলেই মত দেন তিনি।
তিনি বলেন, সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো কি করে করের আওতা বাড়ানো যায়। মানুষের সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর জন্যই করের আওতা বাড়ানো প্রয়োজন। কেননা, অধিক প্রতিষ্ঠান ভ্যাটের আওতায় আনা সম্ভব হলে বেশি মানুষকে সুবিধা দেয়া যাবে। তাই ভ্যাট আদায়ে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে।
রাজস্ব আদায় করতে গিয়ে মানুষ যাতে হয়রানি শিকার না হয় তার আহ্বান জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, দেশে ১৮ লাখ টিআইএন ধারী। এর মধ্যে কর দেয় মাত্র ১১ লাখ। গ্রামে কর দেয়ার মতো অনেকে আছে। তাদের টিআইএন নাম্বার দিয়ে কর আদায়ের ব্যবস্থা করলে রাজস্ব আদায় অনেক বাড়বে।
ভ্যাট আদায়ের অটোমেশন সম্পর্কে মশিউর রহমান বলেন, যারা কর দেবেন তাদের অটোমেশন সম্পর্কে জানতে হবে। তা না হলে শুধু ব্যয় বাড়বে। রাজস্ব আদায় বাড়বে না। এ জন্য এনবিআরএর কাজ হবে বড় ব্যবসায়ীসহ করদাতাদের অটোমেশনের মধ্যে আনা।
মাতলুব আহমদ বলেন, সঠিক ভাবে মূসক আদায় করলে বাজেটের অর্থায়ন অভ্যন্তরীণ উৎস থেকেই করা সম্ভব। বিদেশি অর্থের প্রয়োজন হবে না।
অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, কেউ কর দিতে চায় না। ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদের একজন সদস্য ২০০৯ সাল পর্যন্ত টিআইএন সম্পর্কে জানতেন না।
এ সময় দেশে বিনিয়োগ বিষয়ে তিনি বলেন, ধারণা করা হচ্ছিল বিদ্যুৎ ও অবকাঠামোগত সমস্যার কারণে বেসরকারি বিনিয়োগ হচ্ছে না। কিন্তু এখন বিদ্যুৎ উৎপাদন অনেক বেড়েছে। রাস্তা-ঘাটের উন্নয়নও বেশি হয়েছে। তারপরও বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়েনি। বেসরকারি বিনিয়োগ না বাড়লে কর আদায়ে তা নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এতে সরকারের বিনিয়োগও বাধাগ্রস্ত হবে।

৩ থেকে ৪ লাখ প্রতিষ্ঠান ভ্যাট দেয় না: অর্থমন্ত্রী

13/07/2015

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 1 =