৩০ নভেম্বরের পর জরিমানা দিয়ে আয়কর রির্টান দাখিল করা যাবে

৩০ নভেম্বর শেষ হবে আয়কর রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা। এবার দেরি হলেই গুনতে হবে জরিমানা। প্রতিবছর দফায় দফায় সময়সীমা বাড়ানোর সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতেই, আইন করে এ রীতি চালু করা হয়েছে।

এনবি আরের সাবেক কর্মকর্তা ও বিশ্লেষকরা মনে করেন, এজন্য করদাতাদের আরো সচেতন করতে হবে। তাদের মতে, কর প্রশাসনের সেবা না বাড়ায় করদাতারা এখনো রিটার্ন দাখিলে মিথ্যার আশ্রয় নেয়। নেই আইনেরও যথাযথ বাহস্তবায়নও।

আড়াই লাখ টাকার বেশি আয় হলেই আয়কর রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক। এছাড়া চিকিৎসক, প্রকৌশলী, ঠিকাদার, জনপ্রতিনিধি ও সরকারি চাকুরিজীবিসহ এমন ২০ ধরনের পেশাজীবিদের আয় যে পরিমাণই হোকনা কেন তাদের রিটার্ন দেয়া বাধ্যতামূলক।

২০১৫-১৬ অর্থবছরের আয়কর দাখিলের সময়সীমা শেষ হবে আর মাসখানেক পর। অর্থাৎ রিটার্ন দাখিলের সবশেষ মেয়াদ ৩০ নভেম্বর। এরপর রিটার্ন দাখিল করলে গুণতে হবে জরিমানা।

এনবিআরের দাবি রাজস্ব আদায়ে গতি আনতে গত কয়েক বছরে, আয়কর, মূসকসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নেয়া হয়েছে নানা সংস্কার পদক্ষেপ। আর রাজস্ব ফাঁকি ঠেকাতে কাজ করছে বিভিন্ন টাস্কফোর্স। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, আয়কর দাখিলের সময় করদাতারা অনেক সময়ই মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করেন। অনেক সংস্কার পদক্ষেপের পরও করদাতাদের মাঝে আয়কর সর্ম্পর্কে ভীতি কাটানো যায়নি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven − 5 =